News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

আবারও নির্বাচন করবো : সেলিম ওসমান


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২২, ১০:১৯ পিএম আবারও নির্বাচন করবো : সেলিম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেন, আমরা কেউ যেন ভয় না পাই। জন্ম হলে মৃত্যু থাকবেই। আমি রাজনীতি করতাম না। নারায়ণগঞ্জে পরিচিতই ছিলাম না। মৃত্যু অনেকবার এসেছে। জীবনে অনেক কষ্ট করেছি। আমার বাড়িতে হামলা করা হয়েছিল। আমার কারখানা দখল করা হয়েছিল। আমি কাউকে কিছু বলি নাই। জীবনে যথেষ্ট পরিশ্রম করেছি। আমি কাজকে কখনও ঘৃণা করি নাই।

সেলিম ওসমান বলেন, আমরা কেউ কেউ মুক্তিযোদ্ধা বলে অনেকেই বড়াই করে থাকি। আমরা সবাই মুক্তিযোদ্ধা ছিলাম। গুটি কয়েকজন রাজাকার ছিল। আর তাদের হাতে পতাকা তুলে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেদিন আমরা প্রতিবাদ করেনি। আমরা মুক্তিযোদ্ধারা থাকা সত্বেও বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল তখন আমরা প্রতিবাদ করিনি। আমাদের লজ্জা হওয়া উচিত। প্রত্যেকের কাজ করতে হবে। হতাশ হলে কিছু আসে না। যত বিপদ আসবে তত পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা পাশ করেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।

আবারো নির্বাচন করবেন বলে জানিয়ে সেলিম ওসমান বলেন, আমার নির্বাচন করার ইচ্ছা ছিল না। রাজনীতিতে আসার ছিল না। প্রথমবার আমি আমার মায়ের ইচ্ছায় নির্বাচন করেছিলাম। দ্বিতীয়বার একজন মুরুব্বীর ইচ্ছায় আমি নির্বাচন করেছিলাম। বাংলাদেশে আমার একজনই মুরুব্বী আছে আমি তার কথা সবসময় শুনে থাকি। তখন অনেকেই অনেক কথা বলেছিলেন। কিন্তু যারা কথা বলেছিলেন তাদের নেত্রীই কিন্তু আমাকে নির্বাচন করার জন্য বলেছিলেন। তিনি যদি আবার বলেন আমি আবারও নির্বাচন করবো। তিনি বললে আমি নির্বাচন করবো।

তিনি বলেন, স্বপ্ন শুধু স্বপ্নই থাকে না স্বপ্ন বাস্তাবায়িত হয়ে থাকে। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য কাজ করতে হবে। নারায়ণগঞ্জের জন্য আমাদের বেঁচে থাকতে হবে। দেশের জন্য আমাদের বেঁচে থাকতে হবে। এমন কোনো জীব নাই যার মৃত্যু হবে না। আল্লাহর কাছে হায়াৎ চেয়ে নিতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ের আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা এই মুহূর্তে আমরা বলছি আমাদের ক্রাইসসি। আমাদের তেল নেই আমাদের গ্যাস নেই। আমরা ব্যবসা করতে পারছি না। আমরা বিপজ্জনক অবস্থায় আছি। কারা দেশটাকে অরাজকতায় নিয়ে চলে যাচ্ছে। সে আলবদর রাজাকাররা যারা নাকি রাজাকারের গাড়িতে পতাকা তুলে দিয়েছিল। তারাই আজকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। একবার মনে করেন ৭৪ সালে আকাল লেগেছিল কেন? কারণ সে সময় থেকে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছিল।

সেলিম ওসমান বলেন, ১০ তারিখে মিটিং এখানে মিটিং ওখানে মিটিং এত মিটিং কিসের মিটিং? যেখানে মানুষ খেয়ে পরে বাঁচতে পারছে না। আসেন না একবার বসেন না। কিভাবে গ্যাসের দাম কমানো যায়। কিভাবে বিদ্যুৎ সঞ্চয় করা যায়। আসেন না সংলাপ করেন। নির্বাচনের সময় নির্বাচন করবেন। পাশ করলে সরকার বানাবেন। প্রত্যেকটা দলের মধ্যে বিভেদ আর বিভেদ। আর আমাদের দেশের মানুষ খেয়ে পরে বাঁচে না। এজন্যই কি আমরা যুদ্ধ করেছিলাম। এজন্যই কি পতাকা এনেছিলাম। এজন্যই কি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের দেশ চাই। আসেন আল্লাহর কাছে দোয়া করি। আমাদের যেন আর গোলামী করতে না হয়।

যতক্ষণ বেঁচে থাকবেন ততদিন কাজ করে যাবেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি যদি মানুষের উপকার করতে চাই আল্লাহ যেন আমাকে হায়াৎ দান করেন। আর যদি উপকার করতে না পারি তাহলে আমার হায়াতের দরকার নেই। যতক্ষণ হায়াৎ পাবো ততক্ষণ কাজ করবো। আমাকে বলা হয়েছিল মুক্তিযোদ্ধাদের থাকার জায়গা নেই। কিন্তু থাকার জায়গা নেই সেই লিস্ট আমি পাইনি। সে লিস্ট আমাকে দেন। কোনো জেলা প্রশাসকের ক্ষমতা নাই আমরা যদি দাবী করি সেই দাবী বাস্তবায়ন হবে না। তাহলে আমরা সেই জেলা প্রশাসনের অধীনে কোনো কর্মকা-ে যাবো না। আমরা কে হার মানবো? আমার মুক্তিযোদ্ধারা ঘরবাড়ি না পায় থাকার জন্য সরকার এত গুচ্ছ গ্রাম বানাচ্ছেন আমরা কি পাবো না? আমাদের জন্যই আমরা পাচ্ছি না। মুক্তিযোদ্ধা যেন অশান্তিতে না থাকে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ভবনে আয়োজিত এক দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের সুস্থতা কামনায় মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে এই দোয়া মাহফিল ও সভার আয়োজন করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমা-ার মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ রশিদ, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির  সভাপতি খালেদ হায়দার কাজল, আমরা নারায়ণগঞ্জবাসীর সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুরুদ্দিন আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট নুরুল হুদা, মুক্তিযোদ্ধা মোহর আলী চৌধুরী ও মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান ভূইয়া জুলহাস সহ অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধারা।

Islams Group
Islam's Group