News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

টার্গেট নগর ভবনে ঘাঁটি


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | শাহরিয়ার অর্ক : প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২২, ১০:১৬ পিএম টার্গেট নগর ভবনে ঘাঁটি

গত এক দশকে অনেকবার চেষ্টা হয়েছিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম প্যানেল মেয়র নিজেদের কব্জায় নেওয়ার। একাধিক চেষ্টা হয়েছিল অনাস্থা প্রস্তাবের। কাউন্সিলরদের কণ্ঠে যেমন উঠে এসেছিল পর্দার আড়ালের সেই ষড়যন্ত্রের খবর তেমনি সে খবর প্রকাশ করেছিলেন খোদ মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীও। কিন্তু কোনটিই সফল হয়নি। এবার জেলা পরিষদের নির্বাচনের পর নতুন করে টার্গেট সিটি করপোরেশনের নগর ভবন। প্যানেল মেয়রের প্রথম যিনি থাকেন তিনি নগর ভবনে আলাদা একটি অফিস রুম পাবেন। সে রুমটিকেই টার্গেট এখন একজন এমপির অনুগামী কাউন্সিলরদের। যে কোন মূল্যে যে কোন উপঢৌকনে কাউন্সিলরদের পকেটবন্দী করে এ পদটিকে বাগিয়ে নেওয়া। এ লক্ষ্যের আরেকটা কারণ মেয়রকে ডিস্টার্ব করা।

এরই মধ্যে খবর উঠেছে আগামী ১২ ডিসেম্বর মাসিক সভাতে অনুষ্ঠিত হতে পারে সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়রের নির্বাচন। তবে বিষয়টি নির্ভর করছে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর উপরে। তিনি চাইলে সেদিন ভোট হতে পারে। তবে এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিজেদের হিসেব নিকেষ শুরু করেছেন।

কাউন্সিলরদের একাধিকজন জানান, দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে অনেক কাউন্সিলরের পকেট খালি। সেজন্য কেউ কেউ আশায় আছেন যিনি ঠিকমত ভরে দিতে পারবেন তার ব্যালটেই ছাপ দিবেন। অক্টোবরে জেলা পরিষদের নির্বাচনের সদস্য পদেও কাউন্সিলরদের টাকা দিয়ে কেনার অভিযোগ তুলেছেন লটারীতে পরাজিত জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত দুইদিন ধরে কাউন্সিলরদের মধ্যে প্যানেল মেয়র নিয়ে বেশ টানটান উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে শুরু হতে করেছে সিন্ডিকেট। সন্ধ্যার পর বিভিন্ন এলাকাতে কাউন্সিলরদের বৈঠক বসছে। শহরের লিংক রোডের পূর্ব পাশে একটি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানের সভাপতিও পেছন থেকে কলকাঠি নাড়তে শুরু করেছে। ওই নেতার কথায় অনেক কাউন্সিলর উঠাবসা করেন।

কাউন্সিলররা জানান, অনেক আগে থেকেই নানা পন্থায় আইভীর বিরোধীতা করতে কাউন্সিলরদের উস্কে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল। বিশেষ করে গত বছরে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরুদ্ধে মসজিদ মাদ্রাসা ও দেবোত্তর সম্পত্তি দখলের অভিযোগ এনে হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি গ্রুপ ও হেফাজত পন্থীরা শহরে সমাবেশ করে আসছিল। ওই সময়েই কাউন্সিলরদের চাপ দেওয়া হয় আইভীর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করতে। আর অভিযোগের মূল বিষয়বস্ত দেবোত্তর সম্পতি দখল, মসজিদ মাদ্রাসা ইস্যু। প্রধানমন্ত্রী বরাবর দেওয়া ওই অভিযোগে সিটি করপোরেশনের আইভী ঘনিষ্ঠ বাদ দিয়ে অন্য কাউন্সিলরদের সাক্ষর করতে বলা হলেও অনেকে সায় দেয়নি। এরই মধ্যে ওই বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারী বন্দরের মদনগঞ্জে একটি ব্রিজের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আইভী বলেন, আমাদের মাননীয় সাংসদ যিনি উন্নয়নের দিকে তাঁর কোন খেয়াল নাই। কাজ কর্মের দিকে তাঁর কোন খেয়াল নাই মেয়র আইভী কি করলো সেটা নিয়ে তার মাথাব্যাথা। তাহলে নিশ্চয় আমি মাথা ব্যাথার কোন কারণ। আর সেই কারনটা হলো আপনাদের ভালোবাসা। জোর জুলুম করে আমাদের কাউন্সিলরদের কাছ থেকে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। কাউন্সিলদের বিপদে ফেলা হয়, ভয়ভীতি দেখানো হয়। কিন্তু আমি তাদেরকে একদম স্বাধীনভাবে ছেড়ে দিয়েছি। কেন স্বাক্ষর দিয়ে আসলেন কেন ওখানে গেলেন, কেন রাইফেল ক্লাবে গেলেন এমন কোন প্রশ্ন আমার মাঝে নাই। কারণ তারা স্বাধীন মানুষ তাদের বিবেক আছে। প্রত্যেকটা মানুষেরই বিবেক আছে। তারা কি করে স্বজ্ঞানে করে। আমার এটা নিয়ে কোন মাথা ব্যথা নাই। আমার মাথা ব্যথা হলো আমি কোথায় আপনাদের একটা মাঠ করে দিবো, কোথায় একটা পার্ক করে দিবো।

গত ১৭ অক্টোবর জেলা পরিষদের নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ডে ১৫টি করে সমান ভোট পেলেও পরদিন লটারীতে জিতে গেছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুর রহমান। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম। নির্বাচনে হাজী আলাউদ্দিন পেয়েছেন ৩ ভোট, সায়েম রেজা ১ ভোট। বাতিল হয়েছে আরো এক ভোট। আর ভোট দিতে আসেননি ২জন।

সব কিছু হিসেব করে, এই ৬টি ভোটকে কাজে লাগাতে চায় প্যানেল মেয়র প্রার্থীরা। কারণ হিসেবে, তারাই জানেন কে কারে ভোট দিয়েছেন।

মূলত ওই নির্বাচনের পরেই আইভী এখন আর প্যানেল মেয়র নিয়ে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। কারণ জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ডটি ছিল মূলত সিটি করপোরেশন এলাকা কেন্দ্রীক। এস কারণে প্যানেল মেয়র নির্বাচনে এবারো আলোচনা রয়েছে ওসমান পন্থী কাউন্সিলদের নাম।

প্যানেল মেয়র-১ পদে আলোচনা ওঠে এসেছে সাবেক প্যানেল মেয়র-১ ও মহিলা কাউন্সিলর আফসানা আফরোজ বিভা হাসান, ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু ও ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন প্রধান। কাউন্সিলররা বলছেন, বাবু নির্বাচনে অঢেল টাকা খরচ করতে পারবেন। বিপরীতে রুহুলকে নিয়ে ভয় আছে। সে হিসেবে সাবেক প্যানেল মেয়র বিভাকে নিয়ে লড়াই করতে চান আইভীর অনুগামীরা। শামীম ওসমানের অনুগামীরা চান বাবু এবার নির্বাচন করুক। তিনি প্যানেল মেয়র হতে পারলে নগর ভবনের একটি রুম অন্তত দখল হবে।

প্যানেল মেয়র-২ আলোচনায় নাম পাওয়া গেছে ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহজালাল বাদল, ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। তবে এ পদে আইভীর অনুগামী কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান মনির আগ্রহী।

প্যানেল মেয়র-৩ (নারী) আলোচনা রয়েছেন মহিলা কাউন্সিলর মিনোয়ারা বেগন মিনু, মাকসুদা মোজাফর, শারমিন হাবিব বিন্নী,  শাওন অংকন। এখানে ওসমান পরিবারের সমর্থন বিন্নীর দিকে। বিপরীতে আইভীর নমনীয়তা আছে শাওন অঙ্কনের দিকে।

Islams Group
Islam's Group