News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

বিদ্রোহীদের পক্ষে লোকবল বাড়ছে


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২২, ১০:৪৬ পিএম বিদ্রোহীদের পক্ষে লোকবল বাড়ছে

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপিতে বিদ্রোহী নেতাদের পক্ষে লোকবল দিনদিন বাড়তে শুরু করেছে। দিন যতই যাচ্ছে ততই যেন তাদের অনুসারীদের সংখ্যা বেড়ে চলছে। বিপরীতে কমিটির পদে থাকা নেতাদের পক্ষে দিন দিন নেতাকর্মীদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। সবশেষ মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে সেটাই দেখা মিলেছে। এদিন বিদ্রোহীদের তুলনায় কমিটিতে থাকা নেতাদের পক্ষে লোকবল অনেক কম ছিল।

জানা যায়, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। যার ধারাবাহিকতায় এদিন বিকেলে শহরের ডিআইটি এলাকায় মহানগর বিএনপির বিদ্রোহী নেতাদের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। একই সাথে মহানগর বিএনপির কমিটিতে থাকা নেতাদের উদ্যোগে শহরের মিশনপাড়া এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সরেজমিনে এই দুই কর্মসূচিতে গিয়ে দেখা যায়, মহানগর বিএনপি কমিটিতে থাকা নেতাদের চেয়ে তুলনামূলকভাবে কমিটির বাইরে থাকা নেতাকর্মীরাই বেশি লোকবল নিয়ে কর্মসূচি পালন করেছেন। মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা যেন তাদের কাছেই ভিড়তে শুরু করছেন। এভাবে প্রায় প্রত্যেক কর্মসূচিতেই তারা নতুন ঘোষিত কমিটির নেতাদের সাথে পাল্লা দিয়ে জনসমাগম করে যাচ্ছেন। যা তাদের দক্ষতারই পরিচয় বহন করে।

নেতাকর্মীদের সূত্রে জানা যায়, মহানগর বিএনপির কমিটিতে থাকা নেতাদের উদ্যোগে আয়োজিত এদিনের কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের তেমন সমাগম ঘটাতে পারেননি। বিপরীতে কমিটির বাইরে থাকা নেতাদের কর্মসূচিতে অংশ নেয় মহানগর বিএনপি, সাবেক প্রভাবশালী ছাত্রনেতা জাকির খান বলয়ের নেতাকর্মীরা, বন্দর থানা বিএনপি, সদর থানা বিএনপি, মহানগর ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিক দল, তাঁতী দল, কৃষক দল ও জিয়া মঞ্চের নেতাকর্মীরা।

এর আগে সারাদেশে ধরপাকড়, মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার, জামিন বাতিল করে নেতাকর্মীদের কারাগারে প্রেরণ, পুলিশি হামলা ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের নির্যাতনের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ২০ অক্টোবর বিকেলে নারায়ণগঞ্জেও বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। আর এই সমাবেশ নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি দুইভাগে বিভক্ত হয়ে আয়োজন করেন।

মহানগর বিএনপির নতুন ঘোষিত কমিটির নেতারা চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজন করে। আর তাদের বিপরীতে মহানগর বিএনপির বিদ্রোহী কমিটির মন্ডলপাড়া এলাকায় সমাবেশের আয়োজন করেন। সেই সাথে সমাবেশ শেষে তারা শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিলও করেছেন। সেদিনের কর্মসূচিতেও কমিটির বাইরে থাকা নেতারা কমিটিতে থাকা নেতাদের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন।

তার আগে, গত ৬ অক্টোবর কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা নগরীজুড়ে বিশাল শোক র‌্যালি করেছে। এতে হাজার হাজার নেতাকর্মীর ঢল নামে। মিছিলে উপস্থিত থেকে নেতৃত্ব দেন মহানগর বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট জাকির, আতাউর রহমান মুকুল, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর খান সেন্টু, মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশাসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিরা। সেই সাথে বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও ছিলেন।

এভাবে প্রথমদিকে তাদের বলয়টা ছোট থাকলেও দিন দিন তাদের বলয়টা বড় হতে শুরু করেছে। সেই সাথে মহানগর বিএনপির অনেক নেতা পদত্যাগ না করেও বিদ্রোহীদের সাথে কর্মসূচিতে গিয়ে হাজির হচ্ছেন। পাশাপাশি বিদ্রোহী নেতারাও আগের থেকে আরও বেশি সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। সেই সাথে বিভিন্ন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গিয়ে কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছেন। যা তাদেরও আরও বেশি শক্তিশালী করে তুলেছে।

মহানগর বিএনপির বিদ্রোহীদের বলয়ে যোগ দিয়ে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন যুগ্ম আহবায়ক পদে থাকা অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন। তিনি প্রথমে নিরব থাকলেও এবার বিদ্রোহীদের সাথে মিলে কর্মসূচিতে যোগদান শুরু করেছেন। সেই সাথে একসময়ে তুখোড় ছাত্রনেতা জাকির খানের অনুসারীরাও বিদ্রোহীদের সাথে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ হতে শুরু করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ সেপ্টেম্বর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ৪১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে আহ্বায়ক হিসেবে অ্যাডভোকেট মো. শাখাওয়াত হোসেন খান এবং সদস্য সচিব হিসেবে অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপুকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

আর এই কমিটি ঘোষণার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি দুইভাগে বিভক্ত হয়ে পরেছেন। সেই সাথে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি থেকে ১৫ জন নেতা পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। পদত্যাগকারী নেতারা হলেন- মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক পদে থাকা আব্দুস সবুর খান সেন্টু, হাজী নুরুদ্দিন, বন্দর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল ও সিটি কর্পোরেশনের ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউসার আশা।

সেই সাথে সদস্য পদে থাকা পদত্যাগকারী নেতারা হলেন আওলাদ হোসেন, হান্নান সরকার অ্যাডভোকেট বিল্লাল হোসেন, মনোয়ার হোসেন শোখন, আলমগীর হোসেন, অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান মোল্লা, শহীদুল ইসলাম রিপন, অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান মোল্লা, আমিনুর ইসলাম মিঠু, ফারুক হোসেন, অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলু, মো. ফারুক হোসেন।

Islams Group
Islam's Group