News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

সাখাওয়াত মাইক চেয়েও পাননি


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২২, ১০:৩৭ পিএম সাখাওয়াত মাইক চেয়েও পাননি

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি বিক্ষোভ মিছিল চলাকালীন সময় সদ্য সচিব অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপুর কাছে মাক্রোফোন চেয়েও পাননি আহবায়ক অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। মাইক চেয়েও না পাওয়ায় সাখাওয়াত হোসেন খানের অভিব্যক্তি দেখে সহজেই অনুমান করা যায় তিনি সে সময় বেশ বিরক্ত হয়েছেন। টিপুর কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়া সাখাওয়াতের বিষয়টি মিছিলের সম্মুখে থাকা অনেকেই লক্ষ্য করেছেন।

মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) বিকেলে মহানগর বিএনপির মিছিল চলাকালে এ ঘটনাটি ঘটে। এদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্চারামপুর উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নয়ন মিয়া হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে মহানগর বিএনপি। দুপুরে নগরীর মিশনপাড়া হোসিয়ারি সমিতি কমিউনিটি সেন্টারের সামনে থেকে এই বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শেষে শুরু হয় মহানগর বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল। মিছিলের শুরুতে মাইক্রোফোন হাতে স্লোগান দিতে থাকেন টিপু। এর কিছুক্ষন পরেই সাখাওয়াত তার থেকে মাইক্রোফোনটি চেয়ে হাত বাড়িয়ে বলেন “তুমি আমারে দাও তো”। কিন্তু টিপু সাখাওয়াতের কথায় কান না দিয়ে বলেন 'না না দেওন যাইব না'। এরপর নিজেই স্লোগান দিতে থাকেন। মাইক না পেয়ে অসহায় শাখাওয়াতর চেহারায় এসময় বিরক্তি ফুটে উঠে।

বিষয়টি নতুন কিছু নয় বিএনপি নেতাদের কাছে। এর আগেও স্লোগান দেওয়া নিয়ে বচসা হয়েছে সাখাওয়াত ও টিপুর এমন তথ্য জানিয়েছেন খোদ দলের ভেতরে থাকা নেতারা।

দলীয় সূত্র বলছে, ক্রমাগত ঝগড়া লাগছে মহানগর বিএনপির আহবায়ক সাখাওয়াত হোসেন খান ও সদস্য সচিব আবু আল ইউসুফ খান টিপুর মধ্যে। এসব ঝগড়ার কারনগুলো অত্যান্ত সামান্য ও হাস্যকর। কে মিছিলে স্লোগান দিবে, কে বক্তব্য দিবে, কে কোথায় বসবে এসব নিয়েও ঝগড়া করছেন তারা। মূলত সাখাওয়াত হোসেন খানের উপর চেপে বসার যে চেষ্টা করছেন টিপু তা থেকে বেরিয়ে আসতে চাইলেই লেগে যাচ্ছে এসব ঝগড়া। আর কমিটির অধিকাংশ নেতাকর্মীদের সাথে টিপুর দুর্ব্যবহার তো আছেই। অতিকথন এবং দুর্ব্যবহারে বিরক্ত হয়ে উঠছেন তারা।

মহানগর বিএনপির শীর্ষ এক নেতা জানান, 'দুই নেতা যেভাবে ক্ষনে ক্ষনে তর্কে লিপ্ত হচ্ছেন তাতে এই কমিটি কতদূর এগোয় তা নিয়ে সন্দেহ তৈরী হয়েছে। যদিও বিদ্রোহীরা আগের চাইতে অনেক বেশী প্রভাব হারিয়েছে মহানগরে। কিন্তু নিজেদের ভেতর অভ্যন্তরীন বিবাদ যদি বাড়তে থাকে তাহলে নিজেরাই ক্ষতির মুখে পড়বেন। সাখাওয়াত টিপুর পাশাপাশি এই কমিটিতে ঘিরে সামনে আসা নেতারাও নিজেদের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ঝুঁকিতে ফেলবেন। কোনভাবেই যদি দুজন সংযত না হয় তাহলে বড় বিপদ আসন্ন বর্তমান আহবায়ক কমিটির।

যুবদলের এক নেতা জানান, মহানগর বিএনপিতে টিপু এই মুহূর্তে চেপে বসেছে সাখাওয়াতের উপর। নির্বাচনের সেই ইস্যুটি নিয়ে প্রতিনিয়ত চাপের মুখে রেখে নিজেদের পছন্দের লোকজনকে পদস্থ করছে দলের ভেতর। যারা টিপুকে মূল্যায়ন দিয়ে চলে তাদেরকেই বিভিন্ন আশ্বাস দেয়া হচ্ছে। আর যারা সাখাওয়াতের কাছে দ্বারস্থ হচ্ছেন তাদের দিচ্ছেন তাড়িয়ে। পুরো মহানগর বিএনপিতে এখন সাখাওয়াত ও টিপুর আলাদা বলয় বিদ্যমান। একদিকে সাখাওয়াত চান তার পুরোনো সঙ্গিদের পাশে রাখতে। অন্যদিকে টিপু চান তার পছন্দের লোক থাকুক তার পাশে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিএনপির নেতারা যেই অভিযোগ করছেন সাখাওয়াত ও টিপুর সম্পর্কে তা কোনভাবেই মিথ্যা নয়। মঙ্গলবারে বিক্ষোভ মিছিলের চিত্র এবং ভিডিওই সেটা প্রমাণ করে। টিপু সর্বদা অবজ্ঞাক রে চলে সাখাওয়াতকে। একজন আহবায়ক হিসেবে যেই সম্মান প্রাপ্তি প্রয়োজন সাখাওয়াতের তা কখনই করে না টিপু। উল্টো নিজের মনের মত চলাই তার একমাত্র লক্ষ্য। ফলে পুরো দলের ভেতর বিশৃঙ্খলা তৈরী করছে টিপু। এমন অবস্থা চলতে থাকলে দ্রতই দলের ভেতরে থানা নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে কেন্দ্রের কাছে বিচার দিতে পারেন টিপুর বিরুদ্ধে।

Islams Group
Islam's Group