News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

মাস্টারমাইন্ড ৩ নেতা


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২, ১০:৫২ পিএম মাস্টারমাইন্ড ৩ নেতা

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ৪১ সদস্যের কমিটি শুরুতেই যে ধাক্কার সম্মুখীন হয়েছেন সেজন্য তিনজন নেতাকে দায়ী করে তাদেরকে ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১ পর্যন্ত মহানগর বিএনপির আহবায়ক কমিটির প্রথম সভায় ওই তিনজনের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান ব্যক্ত করা হয়। তবে বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, মূলত মহানগর বিএনপির দায়িত্ব পেলেও তিন নেতায় কার্যত কোনঠাসা হতে চলেছেন ৪১ সদস্যের কমিটি যেখান থেকে ইতোমধ্যে ১৪ জন পদত্যাগ করেছেন। এছাড়া আরো কয়েকজন পদত্যাগ না করলেও কার্যত নিজেদের সরিয়ে রেখেছেন।

সাখাওয়াত হোসেন বলেন, কমিটি গঠন করার পর ১৪ জন পদত্যাগ করেছেন। সেন্ট্রালের সাথে আলাপ আলোচনা না করেই তারা পদত্যাগ করেছেন। সেই সাথে তাদের পদত্যাগের প্রক্রিয়া আমাকে দলকে কেন্দ্রকে ব্যতিত করেছে। বহিস্কৃত ব্যক্তি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের বাসায় গিয়ে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছে। আমরা মনে করি সেটা সরকারের নীল নকশারই একটি অংশ। যারা পদত্যাগ করেছে তারা ২৫ সেপেম্বর পর্যন্ত ২ টার মধ্যে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে এবং কেন্দ্রীয় কমিটির বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছেন সে সকল বক্তব্য প্রত্যাহার করে তাহলে ১১ জনের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না। তবে যে তিনজন মাস্টারমাইন্ড হিসেবে ১১ জনকে পদত্যাগের জন্য বিভিন্নভাবে প্ররোচনা দিয়ে তাদের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করলেও ফেরত নেয়া হবে না। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কেন্দ্রে প্রস্তাব করা হবে। কেন্দ্র যে সিদ্ধান্ত দিবে সেটাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বলে গণ্য করা হবে।

ওই সভা সূত্রে জানা গেছে, কমিটি গঠনের পর থেকেই মূলত এর কঠোর বিরোধীতা করে আসছেন বন্দর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল ও কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশা।

আতাউর রহমান মুুকুল বলেন, ‘শুধু টিপু আর সাখাওয়াতের কথায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থানে, সালাম একটি মনগড়া কমিটি দিয়েছে। এর পেছনে ষড়যন্ত্র আছে। আমাদের তারেক রহমান সাহেবের কাছে এই ষড়যন্ত্রের মুখোশ উন্মোচন করা হবে। আর তারেক রহমান সাহেবকে দিয়েই এই সালামের বিচার করাবো। আহবায়ক কমিটি থেকে আমাদের পদত্যাগ করাটা শতভাগ যৌক্তিক। কারণ এই কমিটিতে দলের সিনিয়র এবং ত্যাগী নেতাদের কোনো সম্মান দেয়া হয়নি। তাই আমরা পদত্যাগ না করলে তাদের অসম্মান করা হতো। পদত্যাগ করে আমরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যেই কমিটিতে অযোগ্যদের উপরের স্থানে চেয়ার দেয়া হয়, সেখানে আমাদের থাকাটা শোভা পায়না।

এ বিষয়ে আবুল কাউসার আশা বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদ্যঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির ঈমানদের সঙ্গে আমার মতো একজন নগণ্য লোক না থাকাটাই শ্রেয়। তাই আমি এই কমিটি থেকে পদত্যাগ করলাম। শহীদ জিয়ার আদর্শ বুকে ধারণ করে দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়া ও আগামীর রাষ্ট্রনায়ক, আমার নেতা তারেক রহমানে নির্দেশে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে অতীতেও ছিলাম, বর্তমানেও আছি, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত থাকবো।’

অপরদিকে খোরশেদ এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজী হয়নি।

Islams Group
Islam's Group