News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯

মহানগর বিএনপি : বিদ্রোহ থেকে মারামারি


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২২, ১১:২৩ পিএম মহানগর বিএনপি : বিদ্রোহ থেকে মারামারি

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ৪১ সদস্যের কমিটি ঘোষণার পর ইতোমধ্যে তিনজন নেতার পদত্যাগের সঙ্গে এখনো টিকে থাকা নেতাদের মধ্যেও দেখা দিয়েছে অসন্তোষ। মহানগর বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সদস্য সচিব পদে থাকা অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপু ও সদস্য পদে থাকা অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধানের মধ্যে উচ্চবাচ্যের ঘটনা ঘটেছে। উচ্চবাচ্য থেকে তারা একে অপরের প্রতি মারধরেরও উপক্রম হয়েছিলেন। সেই সাথে আবু আল ইউসুফ খান টিপুকে উদ্দেশ্য করে আনোয়ার প্রধান ক্রমাগত অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজও করেছেন বলে জানা গেছে।

দলীয় সূত্র বলছে, মঙ্গলবার দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ৪১ সদস্য কমিটি ঘোষণা করা হয়। আর এই কমিটিতে আহবায়ক হিসেবে অ্যাডভোকেট মো. শাখাওয়াত হোসেন খান এবং সদস্য সচিব হিসেবে অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপুকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

আর এই কমিটিতে সদস্য পদে রাখা হয়েছে অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধানকে। যা তিনি মেনে নিতে পারছেন না। কমিটি ঘোষণার পর থেকেই তিনি মারমুখী অবস্থানে রয়েছেন। কমিটির ঘোষণার দিনই তথা ১৩ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় তার অনুসারীদের নিয়ে শোডাউন দিয়েছেন।

জানা যায়, মহানগর বিএনপির কমিটিতে অ্যাডভোকেট আনোয়ার প্রধানের অবনতিকে কেন্দ্র করে বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নতুন কোর্ট এলাকার চেম্বারে অনুসারীদের নিয়ে সভা ডাকেন আনোয়ার প্রধান। আর সেই সভার খবর পেয়ে মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব পদে আসা অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপু যান। সেই সাথে তিনি গিয়ে আনোয়ার প্রধানকে উদ্দেশ্য করে বলতে থাকেন, তুই এগুলো কি শুরু করছস। আমাকে নাকি মারার জন্য খুঁজতাছস?

এইসব কথা বলার সাথে সাথেই টিপুকে উদ্দেশ্য করে আনোয়ার প্রধান একের পর এক অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। টিপুকে উদ্দেশ্য করে বলতে থাকেন, তুই একেক সময় একেক জনের কাজ যাস আর তাদের পচিয়ে আছস। সাখাওয়াত কালাম তৈমূরকে পচিয়ে আবার সাখাওয়াতের কাছে আসছস। আমার সাথে বেঈমানি করছস। এভাবে এক পর্যায়ে মারার উপক্রম হন আনোয়ার প্রধান।

এসব উচ্চবাচ্য শুনে সাখাওয়াত হোসেন খান আনোয়ার প্রধানের চেম্বারে ঢুকতে চাইলে তার মুখের উপর আঙ্গুল তুলে আপনি গাদ্দার। আপনি আমার চেম্বারে প্রবেশ করবেন না। সেই সাথে তাকে আনোয়ারের চেম্বারে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। এভাবে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। পরে অন্যরা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। সেই সাথে আনোয়ারকে টিপু বলতে থাকেন কমিটি শেষ হয়ে যায় নাই। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে তোকে মূল্যায়ণ করা হবে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি শান্ত হয়ে আসে।

এদিকে মহানগর বিএনপির কমিটি ঘোষণার পরপরই অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধান তার ফেসবুক আইডির ওয়ালে ‘বিশ্বাস’ লিখে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। আর এই স্ট্যাটাসে তার অনুসারি ও শুভাকাঙ্খীরা নানা মন্তব্য করতে থাকেন। কেউ লিখেন ‘চিনে রেখো’। কেউ লিখেন ‘বেঈমান চিনেন এবার জান জীবন দেন কার জন্য’। আবার কেউ লিখেন ‘স্বার্থের টানে প্রিয়জন দূরে চলে যায়’। 

আইনজীবীরা জানান, নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় দীর্ঘদিন ধরেই অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান ও অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধান একসাথে রাজনীতি করে আসছেন। তারা সবসময় একে অপরের প্রতি সমর্থন যুগিয়ে থাকেন। যেন একজন ছাড়া আরেকজন চলতে পারেন না। সবশেষ নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কমিটি এসেছে সাখাওয়াতের মাধ্যমে। সেই সাথে কমিটি যুগ্ম সাধারণ সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন সাখাওয়াতের সমর্থনেই।

কিন্তু এবার নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটিকে কেন্দ্র অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনে খানের সাথে যেন অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধানের বিরোধীতা যেন স্পষ্ট হয়ে উঠছে। বিশেষ করে সাখাওয়াত হোসেন খানের সাথে টিপুর সখ্যতা যেন মেনে নিতে পারছেন না।

এই কমিটি ঘোষণার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় শুরু হয়েছে সমালোচনা। বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা এই কমিটিকে কোনোভাবে মেনে নিতে পারছেন না।

আইনজীবীরা জানান, নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় দীর্ঘদিন ধরেই অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান ও অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধান একসাথে রাজনীতি করে আসছেন। তারা সবসময় একে অপরের প্রতি সমর্থন যুগিয়ে থাকেন। যেন একজন ছাড়া আরেকজন চলতে পারেন না। সবশেষ নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কমিটি এসেছে সাখাওয়াতের মাধ্যমে। সেই সাথে কমিটি যুগ্ম সাধারণ সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন সাখাওয়াতের সমর্থনেই।

কিন্তু এবার নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটিকে কেন্দ্র অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনে খানের সাথে যেন অ্যাডভোকেট এইচ এম আনোয়ার প্রধানের বিরোধীতা যেন স্পষ্ট হয়ে উঠছে। বিশেষ করে সাখাওয়াত হোসেন খানের সাথে টিপুর সখ্যতা যেন মেনে নিতে পারছেন না।

যদিও এ ব্যাপারে আনোয়ার প্রধান বলেন, কমিটি নিয়ে আমার কোনো আপত্তি নেই। কমিটি আমাকে রাখছে এতেই আমি খুশি। দল আমাকে মনে রাখছে দল আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে এতেই আমি খুশি।

Islams Group
Islam's Group