News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

ওয়ার্ড কমিটি গঠনে কেন্দ্রীয় নেতাদের নজর


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৩, ২০২৩, ১০:২৩ পিএম ওয়ার্ড কমিটি গঠনে কেন্দ্রীয় নেতাদের নজর

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কমিটিতে কেন্দ্রীয় নেতাদের নজর রয়েছে বলে জানিয়েছে একাধিক প্রার্থী প্রত্যাশীরা। যেহেতু ওয়ার্ড সম্মেলনগুলোতে এখনো নেতা নির্বাচিত হয়নি, ফলে সঠিক নেতৃত্বের হাতে দিতে চায় মহানগরের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তাদের সামনের দিনগুলো মনিটরিং করার জন্য ওই সব প্রার্থীদের নজর রাখতে বলেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সহ সভাপতি চন্দন শীল ও প্রভাবশালী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান কলকাতা রয়েছে একটি বিয়ে অনুষ্ঠানে। তাঁরা দেশে ফিরে আসলে ওয়ার্ডের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়ে আলোচনা আসতে পারে।

একাধিক ওয়ার্ডের প্রত্যাশী প্রার্থীরা জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সহ সভাপতি, কয়েকজন সম্পাদক মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের কর্মকা- ও তাদের পরিকল্পনা তুলে ধরেছে। তাঁরা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রবীণ নেতা আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহার প্রতি আস্থা রাখতে বলেছেন। কেন্দ্রীয় নেতারা এও বলেছেন, যেহেতু তাঁরা সম্মেলন করে যাচ্ছে, কিন্তু নেতা নির্বাচিত করার ঘোষণা করছে না এ ব্যাপারে তাদের গভীর কোন চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে। যার যার ওয়ার্ডের প্রার্থী হওয়া আগ্রহ সম্মেলনে তুলে ধরবেন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসতে হলে জীবন বৃত্তান্তের মতো রাজনীতি বৃত্তান্ত প্রয়োজন হয়। কোন নিয়ম ভেঙ্গে ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হলে, সেখানে কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপ করতে পারে। যদি তৃণমূল আমাদের দ্বারস্থ হয়। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছে, একজন নিয়ে আওয়ামী লীগ কমিটি গঠন কর, যেন দুঃসময়ে তিনি রাস্তায় একাইয় নামতে পারে। জামায়াত-বিএনপির সমর্থক বা তাদের স্বজনরা আওয়ামী লীগের কোন পদে বা সদস্য হতে পারবে না।

এক সেক্রেটারী প্রার্থী জানান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিয়ম ভেঙ্গে অনেক কাজ করে যাচ্ছে। তাদের ব্যাপারে ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্যদের জানিয়েছি। তিনি সম্মেলনগুলো শেষ করার পর দলীয় নিয়মে দেখবেন। আওয়ামী লীগের প্রবীণদের সাথে নবীনদের নিয়ে কমিটি গঠন করতে পারে। কিন্তু তৃণমূলকে পিছনে ফেলে কোন কমিটি মানা হবে না। এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারকদের অবগত করা হবে।

২৬নং ও ২৭নং ওয়ার্ডের প্রথম সম্মেলনে মহানগরের নেতাদের কর্মকা-ে ফুঁসে উঠেছে স্থানীয় তৃণমূল। সেখানে ২৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে একজন হওয়ায় তার নাম ঘোষণা করা হয়। নির্বাচিত মেছবাহউদ্দিন হলেন বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বন্দর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের বড় ভাই। তাদের ছোট ভাই সাবেক কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন আনুও বন্দর থানা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রত্যাশী।

২৭নং ওয়ার্ড সভাপতি পদে রয়েছেন ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম ও জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য আলাউদ্দিনের ছেলে সিরাজুল মাজিদ মামুন। এর মধ্যে কাউন্সিলর সিরাজকে সমর্থন দিয়েছেন মহানগরের সহ সভাপতি ওসমান গণি, অপরদিকে মামুন সিরাজীকে সমর্থন দিয়েছে মহানগরের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। আর সেক্রেটারী প্রার্থী ইসলাম পলুকে সমর্থন দিয়েছেন মহানগরের সেক্রেটারী খোকন সাহা। মামুন সিরাজীকে সভাপতি না বানানোর জন্য ইতিমধ্যে তৃণমূল ও এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। ওখানে মহানগরের নেতাদের অর্থ বিনিময়ে কমিটি না দেয়ারও আহবান করেছে।

১৫নং ওয়ার্ডেও পরিবারতন্ত্র ওয়ার্ড কমিটি না করার অনুরোধ জানিয়েছে সেক্রেটারী প্রার্থী ও বতর্মান বন পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সুব্রত কুমার সাহা। তিনি জানিয়েছেন, প্রতীক ঘোষাল পল-এর চাচা ও বাবার সাথে ওয়ার্ডে রাজনীতি করেছি। মহানগরের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের বন্ধুর ছেলে বলে ওয়ার্ডের সভাপতি পদ পাবে। তাহলে আমরা পরিবারতন্ত্র রাজনীতির শিকার হতে যাচ্ছি।

১৭নং ওয়ার্ডেও কাউন্সিলর আব্দুর করিম বাবুকে সভাপতি করার সকল প্রস্তুতি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বর্তমান আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম সোহরাব। তিনি জানিয়েছে, শেষ বয়সে সম্মেলনে সভার সভাপতিত্ব করবো আমি, এখন বলছে মহানগরের সহ সভাপতি শেখ হায়দার আলী পুতুল করবে। এটা কোন নিয়মে এভাবে পরিচালনা হবে, আমার জানা নেই। শেষ বয়সে আমরা তিরস্কার পেতে যাচ্ছি, আমাদের নামে কোন অভিযোগ কখনো পায়নি মহানগরের সভাপতি বা সেক্রেটারী।

১৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম শাকিলও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, ২৭ বছর ধরে ওয়ার্ডে জয়েন্ট সেক্রেটারীর দায়িত্ব পালন করছি। তিনি প্রশ্ন ছুড়ে বলেন, আর কত বছর গেলে সেক্রেটারী হতে পারবো? এই ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুর পর শাহাদাৎ বার্ষিকী করেছিলাম। অনেক সিনিয়র নেতারা এখানে এসেছিলেন, কিন্তু আজও সেক্রেটারী প্রার্থী হতে পারি না। এমনকি ২৮ জানুয়ারি সম্মেলন হবে, সেটার খবর এখনি পায়নি।

Islams Group
Islam's Group