News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

হাম্মাজান ও ভাই গ্রুপ ইস্যুতে সেলিম ওসমানের আলটিমেটাম শেষ


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২৩, ১০:৩২ পিএম হাম্মাজান ও ভাই গ্রুপ ইস্যুতে সেলিম ওসমানের আলটিমেটাম শেষ

প্রশাসনের কাছে ১৫ দিনের আলটিমেটাম দিয়েছিলেন ব্যবসায়ী নেতা ও সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। ১৫ দিনের মধ্যে শহরে বিশৃঙ্খলা করা হোন্ডাবাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন ছিল। সেই আলটিমেটাম শেষ হবে ১৮ জানুয়ারী। কিন্তু এখনো দৃশ্যমান কোন পরিলক্ষিত করতে পারেনি নগরবাসী। হোন্ডাবাহিনী বা হাম্মাজান হিসেবে যাদের বুঝানো হয়েছে তারা নিজেদের গুটিয়ে নেয়নি। বরং তাঁরা আরো সক্রিয় হয়েছেন। অনুগামীরা বলছেন, এমপির বক্তব্যের পরের ৬-৭ অনেকেই বিষয়টি নিয়ে টেনশনে থাকলেও পরে বিষয়টি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। অপরদিকে প্রশাসনের একটি সূত্র জানান, গত কয়েকদিন তাদের কাছে সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ জমা পড়েনি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ জমা পড়লে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৩ জানুয়ারী ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিকেএমইএ'র এজিএম অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখাকালে ব্যবসায়ীদের স্বার্থে বিভিন্ন কথা বলেন। তিনদিন পর ৬ জানুয়ারী বন্দরে জাতীয় পার্টির অফিস উদ্বোধনের সময়েও একই কথা পুনরাবৃত্তি করেন। ওই সময়ে ভাইজান ও হাম্মাজান গ্রুপ বিভিন্ন নাম ভাঙ্গিয়ে কারখানা থেকে ঝুট নামানো, চাঁদাবাজি করার অভিযোগ তুলেন। একই সাথে শহরে মোটরসাইকেলের মহড়ার বিষয়েও প্রশ্ন তুলেন তিনি। ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করে বলেন, নিজের পরিবারের লোকজন হলেও কোন ছাড় নয়। বরং তার কাছে অভিযোগ দেয়া হলে সাথে সাথেই ব্যবস্থা নিবেন। একই সাথে ১৫ দিনের আল্টিমেটামও দেন প্রশাসনের কাছে।

সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জ শহরে ভাইজান বলতে সাধারণ মানুষের যেই বার্তা পৌছায় তা হলো আজমেরী ওসমান। অন্যদিকে হাম্মাজান হিসেবে বিভিন্ন ব্যানার ফেস্টুনে তারই মা পারভীন ওসমানের নাম প্রচারিত হয়ে থাকে। জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে পারভীন ওসমানের যেমন অবস্থান রয়েছে। তেমনি জাতীয় ছাত্র সমাজের রাজনীতিতে অবস্থান রয়েছে আজমেরী ওসমানের। প্রয়াত পিতা নাসিম ওসমানের মৃত্যুর পর থেকে উভয়েই রাজনীতিতে সরব ও নীরব উভয় অবস্থান বজায় রেখেই চলছেন। তবে মাঝে মাঝেই উভয়ের নাম ভাঙ্গিয়ে কিংবা তাদের নির্দেশে বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকান্ডের অভিযোগ উঠেছে।

সভাপতি সেলিম ওসমান বলেন, বর্তমানে কিছু উচ্ছৃঙ্খল ছেলের জন্ম হয়েছে এখানে সেখানে আবার নেত্রীর কথা বলা হয়। সেই নেত্রীকে আবার বলে ‘হাম্মাজান’। হাম্মাজান যেই হোক না কেন কোনো অবস্থায়ই কোনো ব্যবসায়ীর ক্ষতি করা যাবে না। ব্যবসায়ীরা যদি হাম্মাজানের ডরে পকেট থেকে পয়সা দিয়ে দেন আপনাদের থেকে বড় দোষী আর কেউ হবে না। আবার দাঁড়িয়েছে আরেক গ্রুপ ভাইজান গ্রুপ। মোটরসাইকেল দেয়া হয়। কে কিভাবে কোথা থেকে মোটরসাইকেল কিনল, কিভাবে মোটরসাইকেল রাস্তায় নামে কিভাবে বিকেএমইএর ফ্যাক্টরি ফ্যাক্টরিতে ঝুট ব্যবসার সৃষ্টি হয় যেটা নাকি নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়েছিল। আমি এখনও মরি নাই ভয় পাবেন না। ও যদি আমার বাপও হয় তাকে কোনো রকমের ছাড় দেয়া হবে না। মোটরসাইকেল বাহিনী চলবে না। ওসমান পরিবারের সদস্য হাতের পাঁচটা আঙ্গুল কাউকে একরকম করে দেয়নি। ওসমান পরিবারের পাঁচটা আঙ্গুল আলাদা আলাদা আছে সবগুলি সমান না। সুতরাং আপনাদের ভয়ের কোনো কারণ নাই।

তবে আবার এসব বক্তব্যের জবাবও এসেছে। ৭ জানুয়ারী মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ইলেকশনের আর মাত্র এক বছর বাকি আছে। তাই এখন অনেকের এখন টনক নড়েছে। এখন তারা বলছেন হোন্ডা বাহিনী চাই না। তাহলে এই চার বছর কি করলেন আপনারা। ৩০ বছর ধরে এই শহরবাসীকে জিম্মি করে রেখেছেন। হঠাৎ করে ইলেকশনের আগে এই কথাগুলো বললে হয়তো জনপ্রিয়তা বেড়ে যাবে। অনেক ভোট পাওয়া যাবে এইসব কথা বললে। যাই হোক আমরা চাই প্রশাসন প্রশাসনের কাজ করুক।

অ্যাডভোকেট মাসুম বলেন, ‘আবার একজন বলে হাতের নাকি পাঁচ আঙুল নাকি সমান না। যেগুলো সমান না তাহলে ওই আঙুল কাটেন না কেনো? বড় বড় কথার বলে কয়েকটা শ্রেণি নারায়ণগঞ্জকে জিম্মি করে রেখেছে। আজ ২০০ হোন্ডা একসঙ্গে নারায়ণগঞ্জে চলাচল করে। কাদের পৃষ্ঠপোষকতায় তারা চলে। এইসব কথা এতোদিন আমরা বলে আসতাম আজ আপনি হোন্ডা বাহিনীর কথা বলছেন। এটা ভন্ডামি ছাড়া কিছুই না।’

Islams Group
Islam's Group