News Narayanganj
Bongosoft Ltd.
ঢাকা সোমবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

শিমরাইল-চাষাঢ়া সড়কে অটোরিকশায় যানজট


দ্যা নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম | ফারজানা মিতু : প্রকাশিত: জানুয়ারি ২২, ২০২৩, ১০:৪৩ পিএম শিমরাইল-চাষাঢ়া সড়কে অটোরিকশায় যানজট

শিমরাইল মোড় থেকে আদমজী ইপিজেড হয়ে চাষাঢ়া সড়কের যানজটের কারণে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন হাজারো মানুষ। সড়কে গেলে চোখে পড়বে শত শত ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার। যানজটের প্রধান কারণ হিসেবে এই অটোরিকশাকেই দুষছেন অনেকেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিমরাইল মোড়, সিদ্ধিরগঞ্জ বাজার, আদমজী ইপিজেড সংলগ্ন বাজার, দুই নং ঢাকেশ্বরী পয়েন্টে সবচেয়ে বেশি যানজটের সৃষ্টি হয়। এই যানজট বেশী সৃষ্টি হয় পোশাক শ্রমিকেরা সকালে কাজে যোগদানের সময়টায় এবং কাজ শেষে ফেরার সময় সন্ধ্যার পর থেকে। দিনের অন্য সময়টাতেও চিটাগাং রোড, আদমজী বাজারে যানজট লেগেই থাকে।

শিমরাইল থেকে চাষাঢ়া সড়কের দুইপাশে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন পোশাক কারখানা, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্কুল, কলেজ, বাজার, রয়েছে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্র। সবচেয়ে বড় জায়গাজুড়ে অবস্থিত আদমজী ইপিজেডে কাজ করে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষ।

সুতরাং বোঝা যাচ্ছে, আদমজী ইপিজেড সড়কটি বেশ ব্যস্ততম। সেই সঙ্গে মানুষের চাপ সাথে হাজারো অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহন যেমন সিএনজি, কাভার্ডভ্যান, মালামালবাহী ট্রাক, রিকশা, ইজিবাইক হরহামেশাই যানজট সৃষ্টি করছে।

বিশেষ করে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। সিটি করপোরেশন থেকে লাইসেন্সধারী অটোরিকশার তুলনায় সড়কে চলাচলকারী অটোরিকশার সংখ্যা প্রায় তিনগুণ। অতিরিক্ত যানজট সৃষ্টিকারী এই যানবাহনটির চলাচল কিছুদিন বন্ধ করে দেওয়া হলেও, করোনা মহামারির পরে মানুষের অর্থগত দিক বিবেচনা করে পুনরায় চলাচলের সুযোগ করে দেওয়ার পর থেকেই অটোরিকশার পরিমাণ দিন দিন বাড়ছেই।

আদমজী সড়কের এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘বিকালের পর থেকেই কারখানাগুলোর সামনে সারি সারি ফাঁকা অটো রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে থাকবে জায়গা দখল করে এবং কারখানাগুলো ছুটির পর রাস্তায় পায়ে হেঁটে যাওয়ার জায়গাটুকুও থাকে না।’

জেবা নামের এক পোশাক শ্রমিক বলেন, ‘সেই সকালে কাজে আসি আর সন্ধ্যার পর কাজ শেষে যে তাড়াতাড়ি বাসায় যাবো সেই সুযোগ নেই রাস্তায় যানজটের কারণে। ১০ মিনিটের রাস্তায় কোনো দিন ৪০ মিনিট লাগে কোন দিন তার চেয়েও বেশি সময় লাগে।

সিদ্ধিরগঞ্জে বসবাসকারী ফয়েজ হোসেন নামের একজন বলেন, ‘বাজারসহ অন্যান্য কেনাকাটা করতে চিটাগাং রোডের এই বাজারে এসেছিলাম, জ্যামের কারণে এখন জিনিসপত্র নিয়ে কিছুদূর হেঁটেই বাসায় যাচ্ছি।

আদমজী ইপিজেডের আরও একজন পোশাক শ্রমিক বলেন, দেখেন অনেক অনেক ফাঁকা অটোরিকশা কিন্তু হেঁটে যাচ্ছি। কারণ অফিস থেকে বের হয়ে কিছুদূর হেঁটে যাই, একটু যানজট কম মনে হলে আবার অটোতে উঠি। কিন্তু এখন যানবাহনের জটলা বেশি মনে হচ্ছে, তাই এই পা দুটোতেই ভরসা।’

সিদ্ধিরগঞ্জ পুলের পাশে মেহের আলী নামের এক বয়োজ্যেষ্ঠ পথচারী বলেন, ‘আগে দেখেছি এক বাসে ৪০ জন যায়, এখন একটা অটোতে একজন করে যায়, আগে এত যানজট ছিল না। সন্ধ্যার পর কোথাও যাই না এই যানজটের কারণে। কিন্তু আমি চিন্তা করি বয়স তো হয়েছে অনেক যদি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে যাই ডাক্তারের কাছে যেতে পারবো তো?

অনেকেই বলছেন, শুধু ট্রাফিক পুলিশ দিয়ে এই সড়কের যানজট কমানো সম্ভব নয়, নিয়ন্ত্রণহীন অটোরিকশা, রাস্তায় ফুটপাত দখলমুক্তসহ অবৈধ গাড়ি পার্কিং বন্ধ করতে হবে।

Islams Group
Islam's Group